blog

কখন কোন চা খেলে আপনি সারাদিন থাকবেন চাপমুক্ত?

ক্যামোমাইল চা

এমন একটি চা যা প্রায় প্রত্যেকেই দিনের যে কোনও সময়ে পান করতে পারেন

ক্যামোমাইল চা

গত বছর অতিমারির পর থেকে আমরা সকলেই স্বাভাবিক জীবনযাপনে ফেরার চেষ্টা করে চলেছি কিন্তু আমাদের কাজের সময়ে এসেছে বিপুল পরিবর্তন।ঘরের বাইরে কম বরং কম্পিউটারের সামনে বসে থাকার সময় বৃদ্ধি পেয়েছে আর এই সব কারণে আমাদের ঘুমের ব্যাঘাত ঘটছে এর ফলে বৃদ্ধি পাচ্ছে চাপ এবং উদ্বেগ। প্রাকৃতিক নিরাময় আনতে পারে এমন একটি পানীয় যদি আমাদের দৈনিক সময়সূচীতে যোগ করা হয় তাহলে সকলের পক্ষেই ভাল। আর এটি উপলব্ধি করে স্নিগ্ধা মনচন্দা ভারতের প্রথম শংসাপ্রাপ্ত চটি সমিলিয়ার ভেষজ চায়ের একটি সংগ্রহ আনেন,যা হতে পারে আপনার প্রতিদিন সুস্থ থাকার একটি সহজ ও স্বল্প ব্যয়ের বিনিয়োগ।

বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় একটি ভেষজ চা হল ক্যামোমাইল।এই ক্যামোমাইল ফুল পাওয়া যায় হিমালয়ের পাদদেশে যেখানে প্রাকৃতিক ভাবে এপিজেনিন নামে একটি রাসায়নিক রয়েছে যা মস্তিষ্ককে শান্ত করে এবং ভাল ঘুম হতে দেয়। আর যেহেতু এটি ক্যাফিন-মুক্ত তাই দিনের যে কোনও সময়ে যখনই আপনার আরাম করার প্রয়োজন হয় তখনই এটি চুমুক দেওয়ার জন্য উপযুক্ত।স্নিগ্ধা মনচন্দা বলেন যে যদি এমন একটি চা থাকে যা প্রায় প্রত্যেকের জন্য  এবং দিনের যে কোনও সময়ে উপযুক্ত তাহলে এটি হল ক্যামোমাইল চা। ল্যাভেন্ডার চা হল ল্যাভেন্ডার ফুলের কুঁড়ি থেকে প্রস্তুত করা আরেকটি আরামদায়ক চা। এটি আমাদের ইন্দ্রিয়গুলিকে অত্যন্ত শান্ত এবং শিথিল করতে পারে। প্রাপ্তবয়স্কদের উদ্বেগ এবং অবসাদ থেকেও মুক্তি দিতে পারে এই ল্যাভেন্ডার চা।

Chamemine-tea-chowkbazar

মহিলাদের ঋতুস্রাব সহ বিভিন্ন শারীরিক ক্রিয়াকলাপগুলিকেও চাপ বা স্ট্রেস প্রভাবিত করতে পারে। সারা বিশ্বে বহু মহিলার পিসিওএস নামক একটি রোগ হয় এবং স্ট্রেসকে এর একটি কারণ বলে মনে করা হয়। যদিও পিসিওএস-এর জন্য কোনও চিকিৎসকের সঙ্গে পরামর্শ করা গুরুত্বপূ্র্ণ, তবে স্পিয়ারমিন্ট চা পান কিন্ত মহিলাদের অনেকটাই স্বস্তি দিতে পারে। নিয়মিতভাবে স্পিয়ারমিন্ট চা-পানকারী অনেকেই জানিয়েছেন যে এই চা ঋতুস্রাবের সময়ের বেদনা হ্রাস করে এবং দেহের অবাঞ্ছিত লোম বৃদ্ধি হ্রাস করে। যে মহিলারা পিসিওএস রোগে ভুগছেন তাদের জন্য স্নিগ্ধা মনচন্দার পরামর্শ হল মাসিক ঋতুচক্র নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করতে দিনে ১-২ কাপ স্পিয়ারমিন্ট চা পান করুন।

ক্যামোমাইল, ল্যাভেন্ডার এবং স্পিয়ারমিন্ট হল ক্যাফিন-মুক্ত ভেষজ চা। তাই এগুলি পান করার সময় যদি আপনি ক্যাফিনের অভাব অনুভব করেন, তাহলে স্নিগ্ধা পরামর্শ দিচ্ছেন যে রোজ অন্তত ১কাপ হোয়াইট টি পান করুন।হোয়াইট টি-তে খুবই অল্প পরিমাণে ক্যাফিন থাকে,এটি প্রাকৃতিক ভাবে মিষ্টি, মধুর মতো সুগন্ধযুক্ত এবং চায়ের জগতে এটায় সর্বাধিক পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিড‍্যান্ট থাকে।হোয়াইট টি আমাদের শারীরিক চাপের বিরুদ্ধে লড়তে এবং বয়স-বৃদ্ধির লক্ষণগুলিকে বিপরীতমুখী করতেও সহায়তা করে। ত্বকের যত্নের জন্য বার্ধক্য-রোধকারী প্রসাধনীগুলি প্রস্তুত করতেও এর ব্যবহার করা হয়। যদিও আমরা সকলেই মশলা-চা পছন্দ করি এবং কোনও সন্দেহ নেই যে এটি মেজাজ খুবই ভাল করতে পারে। তবে যাঁরা চা নিয়ে এক্সপেরিমেন্ট করতে চান, তাঁদের জন্য স্নিগ্ধা মনচন্দার ৩টি পরামর্শ:
১) ভেষজ চায়ে দুধ দেবেন না। এগুলি অন্যান্য চায়ের চেয়ে আলাদা।২) সবকিছুই মাত্রার মধ্যে রাখা উচিত, তাই দিনে বড়জোর এক থেকে দুই কাপ পান করুন। ৩) এমন চা পান করুন,যেগুলি সম্পূর্ণভাবে প্রাকৃতিক এবং প্রিজ়ার্ভেটিভ-মুক্ত।”

ক্যামোমাইল চা

ক্যামোমাইল চা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *